করোনাপ্রতিরোধী টিকা চলতি বছরের শেষ নাগাদ : ডব্লিউএইচও

share on:
ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক

করোনাপ্রতিরোধী টিকা চলতি বছরের শেষ নাগাদ  পাওয়া যেতে পারে। এমন আশার কথা শুনিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস।

করোনার নিরাপদ ও কার্যকর টিকার দিকে তাকিয়ে আছে পুরো বিশ্ব। এই লক্ষ্যে অনেকটা সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কাজ করছেন বিজ্ঞানীরা।

সংস্কৃতিবানেরা ফেসবুকে সংস্কৃতি ডটকমের পেইজে লাইক দিন এখানে ক্লিক করে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, গতকাল মঙ্গলবার ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস করোনার টিকা পাওয়া নিয়ে এই আশার কথা বলেন।

একটি নিরাপদ ও কার্যকর করোনার টিকা চলতি বছরের শেষ নাগাদ পাওয়া নিয়ে আশার কথা শোনালেও এ বিষয়ে কোনো ব্যাখ্যা দেননি ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক।

করোনা মহামারি নিয়ে ডব্লিউএইচওর নির্বাহী বোর্ডের দুই দিনের বৈঠকের সমাপনীতে দেওয়া বক্তৃতায় তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস বলেন, ‘আমাদের টিকা লাগবে। চলতি বছরের শেষ নাগাদ আমরা একটা টিকা পেতে পারি বলে আশা করা যায়। আশা আছে।’

করোনার টিকা পাওয়া গেলে তার সমবণ্টন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিশ্বের সব নেতার একাত্মতা ও রাজনৈতিক অঙ্গীকারের আহ্বান জানান ডব্লিউএইচওর মহাসচিব।

তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস বলেন, ‘আমাদের একে অপরকে দরকার। আমাদের সংহতি দরকার। আমাদের যত শক্তি আছে, তার সবটুকু ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ব্যবহার করা দরকার।’

ডব্লিউএইচওর নেতৃত্বাধীন ‘কোভ্যাক্স’ নামের বৈশ্বিক উদ্যোগ পরীক্ষামূলক ৯টি টিকার ওপর নজর রাখছে। এই টিকাগুলো পরীক্ষার চূড়ান্ত ধাপে রয়েছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সসহ একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম জানিয়েছে, পরীক্ষা চলছে এমন ৯টি টিকা ডব্লিউএইচও পরিচালিত ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস গ্লোবাল অ্যাকসেস’ (সিওভিএএক্স) ফ্যাসিলিটির আওতায় আসার পথে আছে। সিওভিএএক্স এর লক্ষ্য ২০২১ সালের শেষ নাগাদ ২শ’ কোটি ডোজ টিকা বিতরণ করা।

এ পর্যন্ত ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস গ্লোবাল অ্যাকসেস’ উদ্যোগে সামিল হয়েছে মোটামুটি ১৬৮টি দেশ। তবে চীন এবং যুক্তরাষ্ট্র এর মধ্যে নেই।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান বলেন, ‘আগমনের পথে থাকা টিকা এবং অন্যান্য পণ্যের জন্য বিশেষত বিশ্বের নেতাদের কাছ থেকে রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি পাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ; বিশেষ করে টিকা সমানভাবে বিতরণের ক্ষেত্রে।’

‘কোভ্যাক্স’ উদ্যোগের মাধ্যমে ২০২১ সালের শেষ নাগাদ বিশ্বে ২০০ কোটি ডোজ টিকা দেওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন : করোনা ভাইরাস : গুজব ও বাস্তবতা।

Facebook Comments
share on: